বাসযোগ্য শহরের তালিকায় শেষের দ্বিতীয় ঢাকা

পৃথিবীর বাসযোগ্য শহরের তালিকায় শেষ দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে ঢাকা। ১৪০টি শহর নিয়ে করা তালিকায় ঢাকার অবস্থান ১৩৯তম। বাসযোগ্য হিসেবে ঢাকার চেয়ে খারাপ অবস্থানে কেবল যুদ্ধবিধস্ত সিরিয়ার শহর দামেস্ক।  সংবাদমাধ্যম দ্য ইকোনমিস্ট সম্প্রতি এই তালিকা প্রকাশ করেছ।

দ্য ইকোনমিস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, শহরে নাগরিক সুযোগ-সুবিধা, আইনশৃঙ্খলাসহ বিভিন্ন বিষয়ে ১০০ নম্বরের ভিত্তিতে বাসযোগ্য শহরের তালিকা করা হয়। ইকোনমিস্টের তালিকার ১৪০টি শহরের মধ্যে শেষের অবস্থানে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার দামেস্ক শহর পেয়েছে ২৯.৩। শেষ থেকে দ্বিতীয় বাংলাদেশের ঢাকার নম্বর ৩৮.৭। শেষ পাঁচে থাকা অপর শহরগুলো হলো পাপুয়া নিউ গিনির পোর্ট মোরেসবাই (৩৮.৯), নাইজেরিয়ার লাগোস (৩৯.৭) ও লিবিয়ার ত্রিপোলি (৪০)।সিএনএনের প্রতিবেদনে অনুযায়ী, ঢাকা বাসযোগ্য শহরের তালিকায় শেষ থেকে দ্বিতীয় হ্ওয়ার পেছনে অনেক কারণ রয়েছে, যার অন্যতম একটি হলো যানজট। ২০১১ সালের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঢাকা শহরে দিনে সাত ঘণ্টার বেশি যানজট লেগে থাকে। গত চার বছরে যানজট পরিস্থিতির বড় কোনো উন্নতি হয়নি। এ ছাড়া অনেক নাগরিক-সুবিধা থেকে বঞ্চিত ঢাকার অধিবাসীরা।

দ্য ইকোনমিস্টের বাসযোগ্য শহরের তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন। পঞ্চমবারের মতো বিশ্বের সবচেয়ে বাসযোগ্য শহর নির্বাচিত হয়েছে এটি ।

পঞ্চমবারের মতো বিশ্বের সবচেয়ে বাসযোগ্য শহর নির্বাচিত হওয়ায় অবাক নন মেলবোর্নবাসী। কারণ নাগরিক সুবিধার বিষয়টি তাদের কাছেই স্পষ্ট। আর অপরাধের অত্যন্ত নিম্নহার এই শহরকে এগিয়ে রেখেছে।

শীর্ষ বাসযোগ্য শহর হিসেবে মেলবোর্ন পেয়েছে ১০০ এর মধ্যে ৯৭.৫ নম্বর। দ্বিতীয় অবস্থানে ভিয়েনা পেয়েছে ৯৭.৪। এর পরই আছে কানাডার দুই শহর ভ্যাঙ্কুভার (৯৭.৩) ও টরন্টো (৯৭.২)।

ইকোনমিস্টের তালিকায় সেরা দশে আছে অস্ট্রেলিয়ার চারটি শহর, কানাডার তিনটি শহর।

ইকোনমিস্টের তালিকায় শীর্ষ পাঁচ শহর
প্রথম মেলবোর্ন ৯৭.৫
দ্বিতীয় ভিয়েনা ৯৭.৪
তৃতীয় ভ্যাঙ্কুভার ৯৭.৩
চতুর্থ টরেন্টো ৯৭.২
পঞ্চম অ্যাডিলেড ৯৬.৬
ইকোনমিস্টের তালিকায় শেষের পাঁচ
১৪০. দামেস্ক ২৯.৩
১৩৯. ঢাকা ৩৮.৭
১৩৮. পোর্ট মোরেসবাই ৩৮.৯
১৩৭. লাগোস ৩৯.৭
১৩৬. ত্রিপোলি ৪

শেয়ার করুন

কোন মন্তব্য নেই

উত্তর দিতে