সুনামগঞ্জের হাওরে তেজস্ক্রিয়তার প্রমাণ পায়নি আনবিক শক্তি কমিশন

নিউজ ডেস্ক:প্রাথমিকভাবে সুনামগঞ্জের হাওরের তেজস্ক্রিয়তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। বরং স্বাভাবিকভাবে যে ধরনের তেজস্ক্রিয়া পরিবেশে থাকে তার চেয়েও অনেক কম রয়েছে।

সুনামগঞ্জের হাওরে মাছ এবং জলজ প্রাণী মারা যাওয়ার ঘটনায় তেজস্ক্রিয়তার কোনো প্রভাব আছে কিনা তা পরীক্ষা করতে শনিবার রাতে সুনামগঞ্জে পৌঁছায় আনবিক শক্তি কমিশনের তিন সদস্যের প্রতিনিধিদল।

রোববার সকালে সুনামগঞ্জের  হাওরের পানি পরীক্ষা শেষে এ তথ্য দিয়েছেন আনবিক শক্তি কমিশনের প্রতিনিধি দলের প্রধান ড. দীলিপ কুমার শাহা।

প্রতিনিধি দলটি সকালে কাজ শুরু করেন সুনামগঞ্জের দেখার হাওরে। পানিতে নেমে দীর্ঘক্ষণ তেজস্ক্রিয়তা পরীক্ষা করেন তারা।

প্রতিনিধি দলে নেতৃত্ব দিচ্ছেন আনবিক শক্তি কমিশনের সদস্য ড. দীলিপ কুমার সাহা। অন্যান্য দুই সদস্য হলেন- ড. বিলকিস আরা বেগম এবং কমিশনের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. দেবাশীস পাল।

কর্মকর্তা ড. দিলীপ কুমার সাহা জানান, দেখার হাওরের পানিতে তেজস্ক্রিয়তার কোনো প্রমাণ পাননি তারা।

তিনি আরও জানান, শনিবার ৭ সদস্যের একটি দল ৫টি হাওর থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পৌঁছেছে। এই নমুনা রোববার পরীক্ষাগারে বিষদভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষার পরই নিশ্চিত হওয়া যাবে মাছ এবং জলজ প্রাণী মারা যাওয়ার কারণটা কি এবং এতে তেজষ্ক্রিয়তার কোনো প্রভাব আছে কি না?

তেজস্ক্রিয়তার প্রভাবে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো প্রানী মারা যায় না। এ ছাড়া মানুষের মধ্যেও যে প্রভাব দেখা দেবে বিশেষ করে মাথা ঘোরানো এবং বমি বমি ভাব এরকম কোনো তথ্যই তারা হাওর অঞ্চল থেকে এখনও পাননি। পরে প্রতিনিধিদল আরও কয়েকটি হাওর পরিদর্শন করেন বলে জানান ড. দিলীপ কুমার সাহা।

 

শেয়ার করুন

কোন মন্তব্য নেই

উত্তর দিতে