কী কারণে বিবাহিত যুগলদের চেহারা একই রকম লাগে দেখতে?

মজার ও অদ্ভুত একটি অভিজ্ঞতা হয়তো অনেকের হয়েছে। কিছু কিছু বিবাহিত যুগলদের দেখলে অবাক হয়ে যেতে হয়। অন্য কোন কারণ নয়। অবাক হবার কারণ হলো, তাদের দুজনের চেহারার মাঝে ফুটে ওঠে অস্বাভাবিক মিল! তাদের চেহারার ধরণ, মুখের আকৃতি, মুখভঙ্গী, বাচনভঙ্গীর মাঝে এতো বেশী মিল চোখে পড়ে যে কাউকে অবাক করে দেবার জন্যই সেটা যথেষ্ট। অনেক যুগলের ক্ষেত্রে চেহারার মিল এতোটাই প্রকট ও স্পষ্টভাবে ফুটে ওঠে যে অপরিচিত কেউ তাদের ভাই-বোন ভেবে নেবেন নির্দ্বিধায়।

কিন্তু কেন এমনটা হয়? দুইজন সম্পূর্ণ ভিন্ন মানুষের চেহারার মাঝে কেন এতো বেশী মিল দেখা দেবে? পূর্ণবয়স্ক দুইজন মানুষ অনেক বছর একসাথে থাকলে চেহারা বদলে যায় কি?  কীভাবেই বা এমন আজব ব্যাপারটা ঘটে থাকে? কী কারণ রয়েছে এর পেছনে? বিজ্ঞানীরা কিন্তু সবসময় খটোমটো বিষয় নিয়েই গবেষণা করেন না। তারা মজার এই ব্যাপারটি নিয়ে গবেষণা করে জানিয়েছেন কী কারণে বিবাহিত যুগলদের চেহারার মাঝে এতো বেশী মিল দেখা দিয়ে থাকে।

অনেকগুলো বছর একসাথে কাটানো

আমেরিকান সোশ্যাল সাইকলোজিষ্ট রবার্ট জ্যানজঙ্ক বেশকিছু যুগলদের বিয়ের দিনের ছবি এবং বিয়ের দিন থেকে ২৫ বছর পরের ছবি তুলনা করে দেখেছেন। তার গবেষণা থেকে তিনি জানিয়েছেন, স্বামী-স্ত্রীর চেহারা ও মুখভঙ্গির মাঝে কোন মিল না থাকলেও ২৫ বছর পরে বিস্ময়কর ভাবে তাদেরকে দেখতে একই রকম লাগে! তার গবেষণার আরেকটি মজার তথ্য হলো- যে যুগল তাদের বিবাহিত জীবনে যত বেশী সুখী, তাদের চেহারার মাঝে মিল তত বেশী প্রকট।

একে-অপরের অভিজ্ঞতা শেয়ার করা

চেহারার মাঝে মিল তৈরি হওয়ার অন্যতম আরেকটি কারণ হলো, একে-অপরের অভিজ্ঞতা শেয়ার করা। একসাথে জীবন কাটানোর ফলে একসাথে তারা অনেক দুঃখ ও আনন্দের অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন। যুগল হিসেবে জীবনের প্রতিটি অভিজ্ঞতায় একসাথে মুখোমুখি হবার ফলে তাদের অঙ্গভঙ্গি এবং আবেগ-অনুভূতির উপরে প্রভাব পড়ে। যার কারণে, তাদের চেহারার মাঝে একই রকম পরিবর্তন ও মিল চলে আসে। এমনকি, অনেকে যুগলের চেহারার একই স্থানে একই রকম বলিরেখা দেখা দেয়!

আমরা সাধারণত তাদের প্রতি আকৃষ্ট হই যারা দেখতে নিজের মতো

গবেষণা মতে, আমরা তাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে থাকি যাদের চেহারা অনেকটাই নিজের মতো। বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত করেছেন, বেশীরভাগ সময়ে আমরা এমন জীবনসঙ্গীকে বেছে নেই যারা শুধুমাত্র দেখতেই নিজের মতো নয়, একেবারে নিজের ডুপ্লিকেট বিপরীত লিঙ্গ হয়ে থাকেন। এটাকে বলা হয়ে থাকে অ্যাসোরটেটিভ মেটিং (Assortative mating). এটা একটি থিওরি। যেটাতে বলা হয়েছে, চেহারার মাঝে মিল রয়েছে এমন মানুষদের একে-অন্যের সাথে দেখা হবার সম্ভবনা তুলনা মূলক বেশী। যে সকল যুগলেরা দেখতে একই রকম হয়ে থাকেন, সম্ভবনা থাকে তাদের সন্তানদের চেহারাও তাদের মতোই হবে। গবেষকেরা বিশ্বাস করেন, এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই এক প্রজন্ম থেকে পরবর্তি প্রজন্মে জিন বহন করা হয়ে থাকে।

নিজের বাবা-মায়ের মতো জীবনসঙ্গীর খোঁজ করা

পুরুষরা সাধারণত নিজের মায়ের মতো কোন নারীকে বিয়ে করতে চান। অর্থাৎ, যে নারীর মাঝে নিজের মায়ের আচরণ ও অবয়বে মিল খুঁজে পান, তাকে বিয়ে করতে আকৃষ্ট হয়ে থাকেন পুরুষরা। এক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্নণ ব্যাপারটি হলো নিজের বাবা-মায়ের চুল, চোখ ও বয়স। যদি বাবা-মায়ের অল্প বয়সে আপনি হয়ে থাকেন তবে আপনার মাঝে নিজের চাইতে বেশী বয়সের জীবনসঙ্গী খোঁজার প্রবণতা থাকবে।

রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা একই রকম

আমাদের রোগ-প্রতিরোধের অবস্থার উপর নির্ভর করে আমাদের জীবন ব্যবস্থা। জীবন ব্যবস্থার মাঝে থাকে খাদ্যাভ্যাস এবং শরীরচর্চা। একদম বিজ্ঞানী তাদের গবেষণা ও তথ্যের উপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, যে সকল যুগলেরা অনেকদিন ধরে বিবাহিত জীবনযাপন করছেন তাদের দুইজনের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতার মাঝে অনেক সাদৃশ্য দেখা দেয়। যে কারণে জীবনসঙ্গী দুইজনের জীবনযাপনের অভ্যাস এবং ধরণ একই রকম হয়ে থাকে।

একে-অপরের প্রতিবিম্ব   

যে সকল যুগলেরা একে-অপরের সাথে অনেকটা সময় থাকেন এবং নিজের মাঝে সুসম্পর্ক বজায় রাখেন তাদের মাঝে একে-অপরের অভ্যাস ও শারীরিক অঙ্গভঙ্গির মিল চলে আসে। এতে প্রকাশিত হয় তাদের দুজনের মাঝে বিশ্বাস ও সম্প্রীতিবোধ রয়েছে। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, বিয়ের পর বেশীরভাগ মানুষ নিজেদের অভ্যাসকে বদলে ফেলতে পছন্দ করেন। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, অনেকেই বিয়ের পর ধূমপান বন্ধ করে দিতে চান অথবা স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া শুরু করেন।

তবে এই সকল গবেষণা, তথ্য ও ব্যাখ্যার পরেও যে ব্যাপারটি সবচেয়ে বড় সেটা হলো, একে-অপরকে সবসময় ভালোবাসা। পরস্পরের প্রেমে মগ্ন থাকা। এই ব্যাপারটি সকল কিছুর উর্ধ্বে গিয়ে দু’জন মানুষের মাঝে সবচেয়ে বেশী সাদৃশ্য তৈরি করে দেয়।
সুত্র: Bright Side

শেয়ার করুন

কোন মন্তব্য নেই

উত্তর দিতে