মেয়েরাই সংসার ভাঙ্গে বেশি!

ডিভোর্স যে কোন মানুষের যে কোন কারণে হতে পারে। বর্তমানের এই যুগে এর পরিমাণ অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে গবেষণায় দেখা গেছে, এই ডিভোর্স মহিলারাই বেশি দিয়ে থাকে। কিন্তু এই ডিভোর্স যখন হয়েই যায় তখন আমাদের অনেক কিছুই শিক্ষা দিয়ে যায় বৈবাহিক জীবন সম্পর্কে। এখন প্রশ্ন আসছে সেগুলো কি তাহলে?

১। বিয়ের পরিকল্পনা করার চেয়ে বিয়ের পরের চিন্তাভাবনা গুলো বেশি করা উচিৎ। বিয়ের আগে বিয়ে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে।

২। বিয়ে মানে ভালবাসা, বন্ধুত্ব, বিশ্বাস, দায়িত্ব, সততা, প্রতিশ্রুতি এবং সবকিছু ভালভাবে চালিয়ে নেওয়ার ইছে। প্রত্যেক সম্পর্ক শুরু হয় সহজ ও সুন্দর ভাবে কিন্তু কিছুদিন পরে হয়তো কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে, তার উপর নিয়ন্ত্রণ রাখা জরুরি।

৩। যখন কোন সম্পর্কে একঘেয়ামি চলে আসে তখন সে বিয়ের সম্পর্ককে সম্মানের সাথে চালিয়ে নেয়া খুব কষ্টকর হয়ে দাঁড়ায়। তাই সম্পর্ককে সবসময় সহজ ও প্রাণবন্ত রাখতে হবে।

৪। কিছুটা হলেও একটু দেরিতে বাচ্চা নেয়ার চেষ্টা করুন। কেননা আগে কয়েক বছর নিজেদের ভালভাবে জানার চেষ্টা করা উচিৎ। আর যদি বাচ্চা হয়ে যায় তাহলে অনন্ত সপ্তাহে একবার বাইরে ঘুরতে যাওয়া উচিৎ। এর ফলে নিজেদের মাঝে কোন দুরুত্ব সৃষ্টি হবে না।

৫। আপনাকে কেউ ভালবাসলেই যে সে বদলে যাবে তা কখনও প্রত্যাশা করা উচিৎ না কারন এতে কষ্ট বাড়ে। আর শুধু মাত্র ভাবলাসার নিজেকেও বদলানো ঠিক না।

৬। শুধু নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত থাকলে হবে না, পরীবার জীবনের বাইরে কিছু সময় কাঁটালে তা আপনার পরিবার জীবনকে আরো মজবুত করে তুলবে এবং বিয়ে ব্যাপারটা একঘেয়ামি পর্যায়ে চলে যাবে না।

শেয়ার করুন

কোন মন্তব্য নেই

উত্তর দিতে