সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায় শুধু মুসলিমদের নয়: টিউলিপ

অনলাইন ডেস্ক: যুক্তরাজ্যের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনের পার্লামেন্ট সদস্য বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপ সিদ্দিক বলেছেন, ‘ব্রিটেনের মুসলমানরা ব্রিটিশ সোসাইটির অবিচ্ছেদ্য অংশ। বিপথগামী কতিপয় বিকৃতমনা সন্ত্রাসীর কর্মকাণ্ডের দায় শান্তিপ্রিয় এই সম্প্রদায় কখনোই বহন করে না।’

তিনি বলেন, `কতিপয় বিভ্রান্ত-বিকৃতমনা সন্ত্রাসীর কর্মকাণ্ডের দায় পুরো মুসলিম কমিউনিটির ওপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা ঐক্যবদ্ধ ব্রিটিশ সোসাইটির চেতনায় আঘাতের শামিল। এ বিষয়ে ব্রিটিশ সরকার, রাজনীতিক ও সাধারণ মানুষকে সচেতন হতে হবে।’

সোমবার লন্ডনের হাউস অব কমন্সের দ্য টেরেস প্যাভিলিয়নে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

টিউলিপ বলেন, `বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে বিশেষ অবদান রয়েছে ব্রিটেনের বাঙালি কমিউনিটির। আজ বাংলাদেশের ৪৭তম স্বাধীনতা দিবস তারা উদযাপন করছেন ব্রিটিশ

পার্লামেন্টে। এটি অবশ্যই একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধে ব্রিটেনের সাধারণ জনগণসহ তৎকালীন এমপিদের সমর্থনের কথা ইতিহাসে শুনেছি। বাস্তবে দেখলাম বাংলাদেশের প্রতি ব্রিটিশ রাজনীতিকদের ভালোবাসা।`

নিজের নির্বাচনে বাংলাদেশি কমিউনিটির ভূমিকার প্রশংসা করে টিউলিপ আরও বলেন, ‘আপনাদের অক্লান্ত পরিশ্রম ছাড়া নির্বাচনে জেতা আমার জন্য কঠিন হতো।’

তিনি তার মেয়ে আজালিয়ার জন্যও বাংলাদেশি কমিউনিটির সবার কাছে দোয়া চান।

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরীফের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফারুকের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে ৫০ জনেরও বেশি ব্রিটিশ এমপি উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে কমিউনিটি সম্প্রীতি রক্ষায় বাংলাদেশিদের ভূয়সী প্রশংসা করেন ব্রিটিশ এমপিরা। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে তারা বলেন, মাত্র নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে একটি স্বাধীন দেশের জন্ম দেয়া পৃথিবীর ইতিহাসে অবশ্যই বিরল ঘটনা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শী নেতৃত্বেই এমন বিরল ঘটনার সাক্ষী হয়েছিল বিশ্ববাসী।

ব্রিটেনে বাংলাদেশি কমিউনিটিকে ঐক্যবদ্ধ ব্রিটিশ সোসাইটির অন্যতম বড় শক্তি বলেও উল্লেখ করেন তারা।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, `একাত্তরে ব্রিটেনের তৎকালীন রাজনীতিক, এমপি ও সাধারণ মানুষের সহযোগিতার কথা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অংশ। বাংলাদেশের জন্মের ৪৬ বছর পরও ব্রিটেনের সেই সহযোগিতা অব্যাহত আছে। আজকের অনুষ্ঠানে ব্রিটিশ এমপিদের উপস্থিতি তাই প্রমাণ করে।’

এতে আরও বক্তব্য রাখেন, লেবার পার্টির ছায়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী এমিলি থর্নব্যারি, ব্রিটিশ সংসদের বাংলাদেশ-বিষয়ক অল পার্টি অ্যালায়েন্সের চেয়ার এন মেইন ও বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনের এমপি রুশনারা আলী, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপি রূপা হক, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার নাজমুল কাওনাইন প্রমুখ।

 

শেয়ার করুন

কোন মন্তব্য নেই

উত্তর দিতে